পার্ল ফেসিয়াল এর উপকারিতা; ২০টি ফেসিয়াল ট্রিটমেন্ট

0
330
ফেসিয়াল ট্রিটমেন্ট

ফেসিয়াল ট্রিটমেন্ট কোন সময় কোন ফেসিয়াল করবেন এটা নিয়ে সকলেই চিন্তিত! তাই আজ আমরা এমন ২০টি ফেসিয়াল ট্রিটমেন্ট নিয়ে আলোচনা করেছি যেখান থেকে আপনি পচন্দ মতো ব্যবহার করতে পারবেন। ত্বকের ভেতর ধুলাবালি জমে বিশেষ করে রোমকূপের গোড়ায় যেসব ময়লা আটকে থাকে, সেসব ময়লা সহজে পরিষ্কার করা সম্ভব হয় না। ময়লা আর অতিরিক্ত তেল একত্রিত হয়ে হোয়াইটহেডস, ব্ল্যাকহেডসহ ত্বকের নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়া একটি বয়সের পর ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে প্রয়োজন পড়ে বাড়তি পুষ্টির।

আর এসব কিছুর সহজ সমাধান পাওয়া যায় ফেসিয়ালের মাধ্যমে। সঠিকভাবে ফেসিয়াল করতে পারলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে লাবণ্যময় তেমনি আপনিও হয়ে উঠবেন সবার মাঝে এক অনন্য। ত্বককে সুন্দর ও সতেজ রাখার জন্য জানতে হবে আপনার মুখমণ্ডলের ত্বক কী ধরনের। চলুন জেনে নেই কোন ত্বকে কেমন ফেসিয়াল করবেন।

জেনে নিন কোন সময় কোন ফেসিয়াল ব্যবহার করবেন

গ্লোল্ড ফেসিয়াল 

গ্লোল্ড ফেসিয়াল  মধ্য বয়সী নারীদের জন্য এই ফেসিয়াল বেশ কার্যকর। এশিয়া মহাদেশের দেশগুলোতে নারীদের ত্বকে একটু হলুদ আভা থাকে। আর এই ফেসিয়াল এ ধরনের ত্বকে উজ্জ্বল ভাব আনে। ত্বকের পুরোনো লাবণ্য, উজ্জ্ব্বলতা ফিরিয়ে  আনতে গোল্ড ফেসিয়ালের জুড়ি নেই।

আরো পড়ুন: লজ্জা নয় জানতে হবে; বেশিক্ষন বীর্য ধরে রাখার বিশেষ টিপস

পার্ল ফেসিয়াল 

পার্ল ফেসিয়াল সব ধরনের ত্বকের জন্য প্রযোজ্য, তবে স্পর্শকাতর ত্বকে এই  ফেসিয়াল বেশ কার্যকর। একটু বয়স বেশি হলে পার্ল ফেসিয়াল করা উচিত। পার্ল ফেসিয়াল করার পর ত্বকে অফহোয়াইট একটা আভা আসে এবং অনেক দিন দীর্ঘস্থায়ী হয়।

অ্যালোভেরা ফেসিয়াল

যাদের ত্বকে বিভিন্ন প্রকার দাগ আছে তারা এই ফেসিয়াল নিতে পারেন। এতে করে ত্বকের সেলের উন্নতি হয়। শুষ্ক ত্বকের জন্য এই ফেসিয়াল খুবই উপকারী। তবে স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা ফেসিয়াল করা যাবে না। রোদে পোড়া ভাব দূর করতেও এটি সাহায্য করে।

গোল্ড ফেসিয়াল

সব ধরনের ত্বকের জন্যই উপকারী, শুধু সেনসিটিভ বা স্পর্শকাতর ত্বকে এই ফেসিয়াল করা যাবে না। এটা সব বয়সী ত্বকের জন্য নেওয়া যাবে। বিশেষ করে বিয়ের কনের জন্য গোল্ড ফেসিয়াল খুব ভালো ফলাফল দেবে। কারণ এটা ত্বকে সুন্দর একটা সোনালি আভা এনে দেয়।

আরো পড়ুন: বিশ্বের সবচেয়ে ছোট ১০টি দেশ (ছবিসহ)

অ্যালোভেরা ফেসিয়াল 

অতিরিক্ত শুষ্ক, রাফ বা সেনসেটিভ ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা ফেসিয়াল অনেক উপকারী। এটি ব্রণের সমস্যা দূর করে,  সানবার্ন ভালো করে,  সেই সঙ্গে বয়সের  ছাপও লুকিয়ে ফেলে। ত্বকের পরিচর্যার জন্যও অ্যালোভেরা ফেসিয়াল বেশ কার্যকর।

অ্যান্টি-রিংকেল ফেসিয়াল  

অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বক, যাদের রিঙ্কেল পরার সম্ভাবনা খুব বেশি তারা এই ফেসিয়াল করবেন। বয়স বাড়ার সাথে সাথে চামড়া কুঁচকে যাওয়া, ভাঁজ পড়া বা ঝুলে যাওয়া ইত্যাদি নানা সমস্যা তৈরি হয়। অ্যান্টি-রিংকেল ফেসিয়াল এসব সমস্যা সমাধান করে আপনার ত্বকে মসৃণতা ফিরিয়ে আনবে।

স্কিন টাইটেনিং ফেসিয়াল

ওজন বাড়লে, গর্ভাবস্থা বা বয়সজনিত কারণে আমাদের মুখের চামড়ার  স্থিতিস্থাপকতা নষ্ট হয়ে ত্বক ঝুলে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। বয়স বেড়ে যাওয়ার  কারণে ত্বকের টানটান ভাব কমে যায়। এ ক্ষেত্রে স্কিন টাইটেনিং ফেসিয়াল খুবই উপকারী।

অ্যারোমা ফেসিয়াল 

অ্যারোমা ফেসিয়াল বিয়ের কনেদের জন্য কার্যকরী। অর্থাৎ যাঁরা কিছু দিন পর বিয়ের কনে সাজতে যাচ্ছেন তাঁদের জন্য এই ফেসিয়াল উপযোগী এবং এই ফেসিয়াল সব ধরনের ত্বকের জন্যই উপযোগী।

আরো পড়ুন: হস্তমৈথুন বাদ দিলে ঘন ঘন স্বপ্নদোষ হয়?

পিম্পেল ফেসিয়াল  

এই ফেসিয়াল তৈলাক্ত ত্বকের এবং ব্রনে আক্রান্তদের জন্য উপকারী। বড় ছোট সবাই এটা করতে পারেন। নিয়মিত মাসে দুবার এই ফেসিয়াল করলে পিম্পেল আস্তে আস্তে কমে আসবে।

ফ্রুট ফেসিয়াল  

বিভিন্ন ফলের ফেসিয়াল আমাদের ত্বকের জন্য খুবই উপকারী যাকে আমরা সাধারণত ফ্রুট ফেসিয়াল বলে থাকি। এই ফেসিয়ালে যে মিক্সড ফ্রুট ক্রিম ব্যবহার করা হয় তা সব ধরনের ত্বকের জন্য ভালো। বিশেষ করে ফ্রুট ফেসিয়াল ত্বকের গভীর থেকে ময়লা পরিষ্কার করে। ত্বক টান টান রাখে।

ফেসিয়ালের সঠিক সময়

আমরা অনেকেই মনে করে থাকি, ২৫-৩০ বছরের আগে ফেসিয়াল করা ঠিক না। এ ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। ফেসিয়াল আমাদের ত্বককে পরিষ্কার ও টান টান রাখে। তাই নিয়মিত ফেসিয়াল করলে বয়সজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

তবে ত্বক পরিষ্কার রাখতে যেকোনো বয়সেই ফেসিয়াল করানো যায়। কিন্তু ট্রিটমেন্ট বেইজ ফেসিয়ালগুলো একটু বয়স হলেই করানো ভালো। সাধারণত ট্র্রিটমেন্ট বেইজ ফেসিয়ালগুলো তিন-চার মাসের হিসেবে করানো হয়। আর ত্বক পরিষ্কার রাখার ফেসিয়াল ১৫ দিন পরপর করলে ভালো হয়।

আরো পড়ুন: যৌন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের গুরুত্বপূর্ণ ১০১টি প্রশ্ন উত্তর!

পার্ল ফেসিয়াল

পার্ল ফেসিয়াল সব ধরনের ত্বকের জন্য প্রযোজ্য, তবে স্পর্শকাতর ত্বকে এই ফেসিয়াল করা যাবে না। পার্ল ফেসিয়াল করার পর ত্বকে একটা হোয়াইটিশ আভা আসে এবং অনেক দিন পর্যন্ত দীর্ঘস্থায়ী হয়।

ট্রিটমেন্ট ফেসিয়াল

ট্রিটমেন্ট ফেসিয়াল হলো ত্বকের বিশেষ কোনো সমস্যা। যেমন- ব্রণ, রোদে পোড়া ইত্যাদি দূর করার জন্য বিশেষ ফেসিয়াল। ত্বকে কোনো ব্রণ থাকলে ট্রিটমেন্ট ফেসিয়াল করতে হবে। ব্রণের জন্য পিম্পল ফেসিয়াল, পিগমেন্টের জন্য পিগমেন্টেশন ফেসিয়াল, ভেজ পিল ফেসিয়াল আছে। অ্যালোভেরা আর থার্মোহার্ব ফেসিয়াল করালে কালো ছোপ দূর হবে।

আরো পড়ুন: কনডম ক্রয়ের আগে যে জিনিসগুলো জানা খুবই জরুরী!

মেছতা দূর করার জন্য আছে ভেজ পিল ফেসিয়াল ও অ্যালোভেরা ফেসিয়াল, যা ত্বককে পরিষ্কার করবে। যাদের ত্বকে বিভিন্ন প্রকার দাগ আছে তারা এই ফেসিয়ালটি করে নিতে পারেন। শুষ্ক ত্বকের জন্য এই ফেসিয়াল খুবই উপকারী। তবে স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা ফেসিয়াল করা যাবে না। রোদে পোড়া ভাব দূর করতেও এটি সাহায্য করে।

প্রিয় পাঠক, আপনিও সম্ভব ডটকমের অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল বিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ ইনবক্স করুন- আমাদের ফেসবুকে প্রতিদিনের স্বাস্থ্য টিপস লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

Posted by: Tanjin alifa Rima

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here