আইডিতে শকুনের নজর পড়েছে কমেন্ট প্লিজ: আদৌ কি কোন কাজ হয়?

‘আমার ফেসবুক আইডি রিপোর্ট হচ্ছে, কমেন্টে রেসপন্স করুন প্লিজ’ বা ‘আইডি ঝুঁকির মধ্যে আছে, স্টিকার, ফটো কমেন্ট প্লিজ’– এ ধরণের অনেক স্ট্যাটাস ফেসবুকে প্রায়ই হয়তো চোখে পড়েছে। এবং প্রতিনিয়ন কোন না কোন ফ্রেন্ড এর পোষ্টে এই স্টাটাসটি দেখা যায়।

এবার যুদ্ধ শুরু যেই সেই স্ট্যাটাস দিয়েছেন, তাদের তালিকায় থাকা বন্ধুরা অসংখ্য লাইক, কমেন্ট মন্তব্য করে, স্টিকার কমেন্ট করে, স্ট্যাটাস দিয়ে সেই ফেসবুক আইডি রক্ষার চেষ্টাও করেছেন।

কিন্তু বাস্তবে এরকম মন্তব্য কতটা কাজে আসে? সত্যিই কি এসব স্টিকারের মাধ্যমে করা মন্তব্য ফেসবুক আইডি বাঁচাতে পারে? আদ্যে কি ফেসবুকের এমন কোন প্রাইভেসি পলিসি এমন কোন তথ্য উল্লেখ আছে?

তবে হ্যাঁ এসইও ক্ষেত্রে, আপনি যদি আপনার ব্লগের কোন পোস্ট আপডেট রাখেন বা এডিট করে বা একটিভিটি সচল রাখেন তাহলে গুগুল আপনার সাইটি একটু ভালো দৃষ্টিতে দেখেন রেঙ্কিং এর জন্য। অন্যদিকে, ফেসবুক যে সমস্যা টি এটি সম্পুর্ন ভিন্ন ভাই!

আমার ফ্রেন্ড লিষ্টে এমন অনেকে আছেন, কিছু দিন পরপর এই ধরণের পোষ্টগুলো দেখা যায়। আবার একজনে লিখেছেন , আইডিতে শকুনের নজর পড়েছে কমেন্ট প্লিজ আজকে আইডিতে রিপোর্ট পড়ছে ২০০০ হাজার লাইক প্লিজ ১০০০ কমেন্ট দরকার । তার এই স্ট্যাটাসে কমেন্ট পড়েছে এগারোশোর বেশি।

এখনকার দিনে এটি একটি ট্রেন্ড হচ্ছে, যারা একটি চেতনা বা ভাবনাচিন্তার পক্ষের লোক, তার অন্য পক্ষকে টার্গেট করে ফেসবুকে রিপোর্ট করে। অনেক সময় স্বার্থ জড়িত কারণেও এটা ঘটে। তখন ফেসবুক থেকে নোটিশ আসে, লগইন করা সম্ভব হয়না। কিন্তু এভাবে কমেন্টের মাধ্যমে যদি অনেক মানুষের সঙ্গে সংযোগ হয়, তখন হয়তো সেটি আইডির পরিচিতর জন্য ভালো হয়।”

এই চিন্তা করেই তিনি ওই স্ট্যাটাসটি দিয়েছিলেন। এক হাজার কমেন্ট চেয়েছিলেন, কিন্তু ভাবতে পারেনি যে সেটি বারোশো ছাড়িয়ে যাবে।

ফেসবুক ঘেঁটে এরকম আরো অনেকের স্ট্যাটাস দেখা গেছে। সেসব স্ট্যাটাসে যেমন কেউ নানা ধরণের মন্তব্য লিখেছেন, আবার কেউ শুধুমাত্র শুরু এলোপাথারি ইমোজি পোস্ট করেছেন।

আরেকজন ফেসবুক ব্যবহারকারী রায়ান কামাল নিজের ছবির সঙ্গে লিখেছেন, ‘আইডিতে রিপোর্ট হচ্ছে, কমেন্টে রেস্পন্স’ করুন, আমার এই বিপদে সবাই সাহায্যে করুন। সঙ্গে চিন্তার ইমোজি।

একজন তরুণী তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘আইডি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে, স্টিকার কমেন্ট প্লিজ’। সেখানে স্টিকার দিয়ে তার অসংখ্য বন্ধু-স্বজন কমেন্ট করেছেন, যার সংখ্যা কয়েকশো ছাড়িয়ে গেছে।

নাম প্রকাশে অনাগ্রহী একজন বলেন, কিছুদিন আগে তিনি ফেসবুক থেকে নোটিশ পান যে, তার আইডিতে কেউ প্রবেশ করার চেষ্টা করেছে। এরপর তার একজন বন্ধুর পরামর্শে তিনি ফেসবুকে এই স্ট্যাটাসটি লেখেন, যাতে কোন কারণে আইডি হারিয়ে গেলেও সেটি পুনরুদ্ধার করা যাবে বলে তার আশা।

কিন্তু, আপনার এরকম মন্তব্যে আদৌ কি কোন কাজ হয়?

ফেসবুক আইডি সমস্যা

এ ধরণের মন্তব্যের মাধ্যমে ফেসবুকে সংযোগ বাড়তে পারে, তবে আইডি রক্ষা বা নিরাপত্তার সঙ্গে এর কোন সম্পর্কে নেই বলে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

বাংলাদেশে ফেসবুক নিয়ে কাজ করে ইউল্যাবের একটি টিম ‘ফ্যাক্ট ওয়াচ’। এর উপদেষ্টা অধ্যাপক সুমন রহমান বলছেন, ”আমরাও খেয়াল করেছি যে, কিছুদিন পরে পরে এরকম স্ট্যাটাস দেয়ার ঘটনা ঘটছে।

যারা এসব লিখছেন, তারা খুব ফেসবুক সেলিব্রেটিও নন। কিন্তু আইডি হ্যাকিং থেকে বাঁচাতে বা আইডির ঝুঁকি বাঁচাতে যেসব লেখা হচ্ছে, তার সঙ্গে ফেসবুকের কাজের আসলে কোন সম্পর্ক নেই। কারণ ফেসবুক এভাবে কাজ করে না।”

তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, ” কেউ যদি কারো ফেসবুক আইডি হ্যাক করতে চায়, তাহলে সেটার সঙ্গে এভাবে স্ট্যাটাসে মন্তব্য করা না করার সঙ্গে সম্পর্ক নেই। তিনি নানা কৌশলে সেই চেষ্টা করবে। আবার ফেসবুকে রিপোর্ট করার কারণে কারো আইডি যদি ফেসবুক ব্লক করে দিতে চায়, সেজন্য নিয়ম অনুযায়ী নোটিশ পাঠাবে, তারপর ব্যবস্থা নেবে। সেটা ফিরিয়ে আনারও নানা পদ্ধতি আছে। সুতরাং অযথা কমেন্ট করে সেক্ষেত্রে প্রভাবিত করার কোন ব্যাপার নেই। ”

ফেসবুকে নিজের ছবির সঙ্গে মন্তব্য চেয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন রায়ান কামাল
ফেসবুকে নিজের ছবির সঙ্গে মন্তব্য চেয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন রায়ান কামাল

সহজে জনপ্রিয়তা অর্জন বা নিজের প্রোফাইলে লাইক/কমেন্ট বাড়াতে অনেকে এ ধরণের কাজ করতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করেন। কারণ যারা এ ধরণের স্ট্যাটাস দিয়েছেন, তারা কেউই ফেসবুকে খুব পরিচিত নন।

এই ব্যাপারে ফেসবুক কি বলছে?

এই ব্যাপারে ফেসবুক কি বলছে?

এ বিষয়টি জানতে ফেসবুকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও, এই লেখা পর্যন্ত সংস্থাটি এ বিষয়ে কিছু জানায়নি।

ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখতে ফেসবুকের পাতায় বেশ কিছু পরামর্শ রয়েছে যেটি ফেসবুক হেল্প নামে পরিচিত। তার মধ্যে টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন চালু করতে বলা হয়। এর মাধ্যমে ফেসবুকে প্রবেশ করতে হলে দুইটি মাধ্যম ব্যবহার করতে হবে। এর মধ্যে যেমন প্রচলিত পাসওয়ার্ড দিতে হবে, তেমনি মোবাইলের মেসেজে আসা কোড বা অথেনটিকেটর থেকে পাওয়া কোড প্রবেশ করিয়ে নিশ্চিত করতে হবে। এর মাধ্যমে ফেসবুক আইডির নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব বলে জানিয়েছে ফেসবুক।

টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন কি? কেন জরুরী?

অবশেষে, অযথা আরেকজনের দেখাদেখি নিজে না জেনে না বুজে এই ধরণের ফেসবুক স্টাটাস দিয়ে অন্যের কাছে হাসির পাত্র হতে বিরত থাকুন।

আপনার যদি আপনার ফেসবুক আইডি নিয়ে আদো কোন সমস্যায় পড়েন, তাহলে সরাসরি ফেসবুক হেল্প সেন্টারে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ আশা করি লিখাটি আপনাদের উপকারে আসবে।

আপনার ফেসবুক এ্যকাউন্টটি স্ট্রং রাখতে নিছের লিখাটি পড়তে পারেন। তাহলে, আপনি সম্পুর্ন বিষয়টি ক্লিয়ার হয়ে যাবে।

১০০টি ফেসবুক টিপস! জানলে, আপনি হবেন সবার ছেয়ে স্মাট

প্রিয় পাঠক, আপনিও সম্ভব ডটকমের অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ ইনবক্স করুন- আমাদের ফেসবুকে  SOMVOB.COM লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

Leave A Reply

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ

বিশ্বের সেরা ২০টি স্মার্টফোন

গতবছর স্মার্টফোনের রাজ্যে বেজেললেস ডিসপ্লে কিংবা নচ এর মত নতুন কিছু ডিজাইন ট্রেন্ড এসেছিল। সেই সাথে ডুয়াল/ট্রিপল ক্যামেরায় বোকেহ ইফেক্ট অথবা ব্যাকগ্রাউন্ড...

REALME 5S সঙ্গে REALME 5 আর REDMI NOTE 7 এর পার্থক্য

এই তিনটি ফোনের দামই 10,000 টাকার কাছেফোন তিনটি কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ অফার করেফোন গুলি ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট করে এখন...

আপনার ফোনে ক্ষতিকর এই অ্যাপগুলো নেই তো?

অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারকারীদের ক্ষতিকর অ্যাপ থেকে সতর্ক থাকতে হয়। ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষা চাইলে ক্ষতিকর অ্যাপ ব্যবহারে সতর্ক হওয়ার বিকল্প নেই। গুগল নানাভাবে...

সনি, শাওমি ও স্যামসাং ফোন হ্যাক করে কোটি টাকা উধাও!

প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর কাছে গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্যের সঙ্গে থাকে ক্রেডিট কার্ড নম্বরও। সুরক্ষা থাকলেও মাঝে মধ্যে তা চলে যায় হ্যাকারদের কাছে। তাই এই...

পিতা-পুত্রের একদিনের আয় ১৩০ মিলিয়ন ডলার

১৯৯৪ সালে মুক্তি পাওয়া অ্যানিমেশন ছবি ‘লায়ন কিং’ দুনিয়া মাতিয়েছিলো। পিতা পুত্রের দুটি চরিত্র সিম্বা ও মুফাসা রাতারাতি পৌঁছে গিয়েছিলো কোটি কোটি...

Related Stories