যে ২৫টি উপায়ে নিজেকে আকর্ষণীয় ও স্টাইলিষ্ট করে তুলতে পারেন!

536
পরিপাটি থাকার উপায়

আমাদের সকলের মাঝেই এই প্রবণতা থাকে আমরা কিভাবে নিজেকে আরও স্মার্ট করে তুলতে পারব। খুজি পরিপাটি থাকার উপায় কি? স্মার্টের সংজ্ঞা একেক জনের কাছে একেক রকম। তবে স্মার্টনেস মানেই নোংরামি নয়, স্মার্টনেস মানেই অশালীন পোশাক পরে শরীর প্রদর্শন নয়, বরং পৃথিবীর সকল পরিবেশের সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে সকল মানুষকে সম্মান করা পূর্বক সকল প্রকার মানুষের কাছে নিজেকে গ্রহণযোগ্য করে তোলা ও নিজেকে সকলের মধ্য থেকে পৃথক করে তোলার নামই হলো স্মার্টনেস।

আমরা প্রায় সময়ই একজন সফল মানুষের জীবন ফলো করে থাকে। আমাদের সকলের জীবনেই অনুসরনীয় বা অনুকরণীয় কেউ না কেউ আছেন যার ব্যক্তিত্ত্ব, আচরণ, কথাবার্তা আমাদের মনে গভীরভাবে ছাপ ফেলে যায়। কিন্তু কখনো চিন্তা করে দেখেছেন কি, তাঁরা কিভাবে সবার প্রিয় হয়ে উঠলেন? নিজেকে স্মার্ট এবং সবার কাছে প্রিয় হবার উপায় লুকায়িত আছে আমাদের মধ্যে। কে না চায় নিজের স্মৃতিশক্তি এবং সৃজনশীলতা বৃদ্ধি করতে?

একটু শান্ত বা চুপচাপ বলে আপনাকে যদি কিছুজন আনস্মার্ট ভাবেন তাহলে ঘাবড়ানোর একদম কিছু নেই। আজকের দুনিয়ায় পায়ে পা মিলিয়ে চলার জন্য স্মার্ট থাকা খুবই দরকার। আর স্মার্ট হওয়া আহামরি খুব শক্ত কোন বিষয় নয়।

আজকে আমরা আলোচনা করব, কিভাবে স্মার্ট হতে হয়, নিজেকে আদর্শ মানুষ হওয়ার উপায় কি, চালাক হওয়ার কৌশল, পরিপাটি থাকার উপায়, হ্যান্ডসাম হওয়ার উপায়, প্রেমিকার কাছে রোমান্টিক হবার উপায়, ছেলেদের কাছে আকর্ষণীয় হওয়ার উপায়, মেয়েদের কাছে আকর্ষণীয় হওয়ার উপায় এবং ব্যক্তিত্ব বৃদ্ধির উপায় কি তা নিয়ে আলোচনা করব। আশা করি পুরো আটির্কেলটি পড়বে। তাহলে আপনি সবার কাছে প্রিয় হবার উপায় গুলো খুঁজে পাবেন।

« এক নজরে দেখুন এই প্রতিবেদনে কি কি রয়েছে »

ব্যক্তিত্ব ধরে রাখার ২৫টি উপায়

ব্যক্তিত্ব বৃদ্ধির উপায়
ব্যক্তিত্ব বৃদ্ধির উপায়

ব্যক্তিত্ববান হওয়ার উপায়: সংবাদপত্র

আদর্শ মানুষ হওয়ার উপায় কি? দেখুন আপনি একদিনে আদর্শ মানুষ হতে পারবেন না। নিজেকে অন্যদের থেকে আলাদা করতে হলে, আপনাকে অন্যদের ছেয়ে ভিন্ন কিছু করতে সকল বিষয়ে কম বেশি ধারণা থাকতে হবে।

প্রতিদিন সংবাদপত্র পড়ার চেষ্টা করুন। জানার কোন শেষ নাই। তাই আপনি প্রথমেই যে কাজটি করবেন তা হল সংবাদপত্র পড়ার অভ্যাস গড়ুন। এর থেকে আপনি পৃথিবীর কোথায় কি ঘটছে সেই খবর প্রতিনিয়ত রাখতে পারবেন। আপনার জানার পরিধি বাড়লেই স্মার্ট হওয়ার পথে বেশ কিছুটা এগিয়ে যাবেন আপনি।

আরো পড়ুন: ড্রাগন ফল খেলে কি হয়? দেখুন ড্রাগন ফলের সেরা পুষ্টিগুণ সমূহ!

কিভাবে স্মার্ট হতে হয়: আগে কথাবার্তায় স্মাট হোন

কথাবার্তায় স্মার্ট হোন। আঞ্চলিক সুর পরিহার করুন। প্রয়োজনে ইংলিশ-বাংলিশ সুন্দর করে মিশিয়ে স্মুথ ভাষা তৈরী করুন, তবুও অপ্রচলিত গ্রাম্য শব্দ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। শুদ্ধ উচ্চারণ শিখুন। অনলাইনে হাজারো রিসোর্স রয়েছে যেখান থেকে আপনি চাইলে যে কোন কিছু খুব সহজেই নিজের আয়ত্ত করে পেলতে পারেন। গুগলে বিভিন্ন টপিক নিয়ে সার্চ করুন। যেমন: “কিভাবে সুন্দরভাবে কথা বলতে হয়” এভাবে লিখে সার্চ করলে আপনি শিখার জন্য হাজারো টপিক পেয়ে যাবেন।

সবার কাছে প্রিয় হবার উপায় হলো: কথা বলার অভ্যাস

সুন্দর করে কথা বলার অভ্যাস করুন। সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বললে সবাই আপনার কথার মূল্য দিবে। আঞ্চলিক ভাষা এড়িয়ে চলুন । কথা বলার সময় সরল সহজভাবেই কথা বলুন, বাঁকা বা অতিরিক্ত জটিল কথা বলে নিজেকে স্মার্ট প্রমাণ করতে চাইলে বোকা বনে যাবার সম্ভাবনাই বেশি। আর অবশ্যই সকলকে সম্মান দিয়ে কথা বলুন। কথা বলার সময় চোখে চোখ রেখে এবং হাসি মুখে কথা বলার চেষ্টা করবেন।

এতে আপনার কথার প্রতি আপনার আস্থা প্রকাশ পাবে এবং সামনের মানুষটিও আপনার ওপরে আস্থা খুঁজে পাবে। এক কথায় আপনাকে সর্বদা সদালাপী, সুভাষী ও প্রাণবন্ত থাকতে হবে এর জন্য প্রয়োজন সুন্দর বাচনভঙ্গি, উপস্থাপন কৌশল আর পর্যাপ্ত জ্ঞান।

আরো পড়ুন: শারীরিক শক্তির জন্য যে সকল খাদ্য বেশি জরুরী

রহস্যময়ী হন

বিপরীত লিঙ্গের কাছে সব সময় নিজেকে রহস্যময় করে রাখুন। নিজের কিছু রহস্য পর্দার আড়ালেই রেখে দিন সব সময়। নিজের সব রহস্য উন্মোচন করে ফেললে ব্যক্তিত্ববান হওয়ার উপায় হতে বঞ্চিত হবেন সবার কাছে। আর তাই কিছু কিছু বিষয়ে নিজেকে রহস্যে ঘিরে রাখুন। নিজের রহস্যময় ব্যক্তিত্বের মাধ্যমে সহজেই আকর্ষণ করতে পারবেন সবাইকে।

লালের সাথে থাকুন (মেয়েদের জন্য)

ছেলেদের কাছে আকর্ষণীয় হওয়ার উপায়: কথায় আছে, “আগে দর্শনধারী পরে গুণ বিচারী” তবে হ্যাঁ কিছু কিছু ক্ষেত্রে আগে গুণ বিচারীও হতে হয়। যাইহোক, নিজেকে আকর্ষণীয় এবং হাইলাইট করার জন্য সঙ্গে রাখুন লাল লিপস্টিক। আপনার স্কিন টোন অনুযায়ী বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন রকমের লাল থেকে বেছে নিন আপনার প্রিয় লিপস্টিক।

লেন্স ব্যবহার করুন

যারা চোখের সমস্যার জন্য চশমা ব্যবহার করেন তারা চশমা ব্যবহার না করে কন্টাক লেন্স ব্যবহার করুন। কারণ চশমা ব্যবহার করলে একটু বেশি ভারিক্কী ও বয়স্ক দেখায় যে কাউকেই।

দৈহিক গড়নের প্রতি লক্ষ্য রাখুন

আপনার দেহ যদি ঢিলেঢালা গোছের হয়ে থাকে তবে আপনাকে অনেক বয়স্ক দেখাবে। তাই কম বয়সী দেখাতে চাইলে দৈহিক গড়নের প্রতি লক্ষ্য রাখুন। নিয়মিত ব্যায়াম করে শারীরিক গঠন সুঠাম রাখুন। এতে বয়স হলেও বোঝা যাবে না। সম্ভব ডটকমে হাজারো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে লিখা আছে আপনি সময় নিয়ে পড়তে পারেন। তাহলে আপনি আপনার সমস্যা অনুযায়ী সমাধান পেয়ে যাবেন।

সময়মত ঘুমান

ঘুম একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তবে অতিরিক্ত ঘুম বা কম ঘুম শরীরের জন্য অনেক ক্ষতিকর। পর্যাপ্ত ঘুম সুস্থ্য মস্তিষ্কের পূর্বশর্ত। সৃজনশীল চিন্তাভাবনা ও প্রখর স্মৃতিশক্তি নির্ভর করে ভালো ঘুমের উপর। বিকালে কখনই ঘুমানো উচিত নয়। সবার জন্য ঘুম সমান না। এক এক জনের জন্য এই পরিমানের তারতম্য আছে কারো ৬ ঘন্টা ঘুমানো যথেষ্ট আবার কারো কারো ৯ ঘন্টা ও লাগতে পারে।

তবে আপনার শরীর এবং মতিষ্কের জন্য যতটুকু দরকার ঠিক ততোটুুকু ঘুমানো উচিত। অনেকের বদঅভ্যাস জনিত কারণে অতিরিক্ত ঘুম হতে পারে। এগুলো পরিহার করে চলতে হবে। ৬-৯ ঘন্টার মধ্যেই ঘুম হওয়া উত্তম। গবেষণায় দেখা গেছে পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে মস্তিষ্কের কোষ ধ্বংষ হয়ে যায়।

আরো পড়ুন: ব্রণ, ত্বক, চুল ও আরো বিস্ময়কর স্বাস্থ্য উপকারী অ্যালোভেরায়!

নতুন কিছু শেখার চেষ্টা করুন

প্রত্যেকদিন নতুন নতুন কিছু শিখলে আপনার বুদ্ধি এবং স্মার্টনেস দুটোই বাড়বে। যার ফলে জ্ঞান বৃদ্ধি মানসিক শক্তি বৃদ্ধি, মস্তিষ্কের চর্চা এবং এর কার্যক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। শুধু যে, বই পড়ে শিখতে হবে এমন কোন বাধ্যবধকতা নেই। আপনি টিউটোরিয়াল দেখে, ভিডিও দেখে বা ঘুরে বেড়িয়ে ও শিখতে পারেন অনেক কিছু। এটি সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করে আপনার উপর যে, কীভাবে আপনি আপনার নিজের চিন্তাশক্তি কাজে লাগিয়ে শিখবেন।

কর্মচারীদের সাথে সম্মানের সাথে কথা বলুন

আপনার চাইতে নিচের পদের লোকদের সাথে যথাযথ আদবের সাথেই কথা বলুন। একজন ব্যক্তি রিকশা চালায় বলেই তাকে তুই করে বলতে হবে, বা বাসার কাজের মানুষটি আপনার থেকে বয়সে বড় হলেও কাজের মানুষ হয়েছেন বিধায় তাঁকে অপমান করে কথা বলার অধিকার আপনি রাখেন না। যিনি নিজের চাইতে ছোট পদের মানুষদের সাথে ভালো আচরণ করতে পারেন না, তিনি কোনোদিনই একজন ভালো মানুষ হতে পারেন না। এই ছোটখাটো বিষয়গুলো আপনার ব্যক্তিত্ব গঠনের উপায় হতে বঞ্চিত করবে।

সবার কাছে প্রিয় হবার উপায় হলো: ভাবসাব কমান

নিজেকে ব্যক্তিত্ববান দেখাতে গিয়ে আবার অতিরিক্ত ভাব বা মুড দেখাতে যাবেন না যেন। অতিরিক্ত ভাব দেখালেই কেউ স্মার্ট হয়ে যায়না, বরং স্মার্টনেস কমিয়েই দেয় আপনার আলগা এই ভাব।

আরো পড়ুন: নাক ডাকা বন্ধ করার ঘরোয়া বিশেষ ২০টি উপায়

আই কন্টাক্ট করার চেষ্টা করবেন

কথা বলার সময় আই কন্টাক্ট করার চেষ্টা করবেন এবং হাসি মুখে কথা বলার চেষ্টা করবেন। এতে আপনার কথার প্রতি আপনার আস্থা প্রকাশ পাবে। এবং সামনের মানুষটিও আপনার ওপরে আস্থা খুঁজে পাবে।

অপ্রয়োজনীয় ও ফালতু কথা বলবেন না

অপ্রয়োজনীয় ও ফালতু কথা বলবেন না এবং অন্যদেরকেও বলতে উৎসাহিত করবেন না। বেশি কথা বলাই স্মার্টনেস এর লক্ষন নয়, বরং পরিস্থিতি মোতাবেক প্রয়োজনীয় কিন্তু জোরদার কথা বলুন। অপ্রাসঙ্গিক কথা বা মন্তব্য জীবনের সব ক্ষেত্রেই আপনার ব্যক্তিত্বকে খাটো করে। এমনকি লক্ষ্য করে দেখবেন যে একটি অপ্রাসঙ্গিক ফেসবুক কমেন্ট পর্যন্ত আপনাকে কতটা খেলো করে ফেলে অন্যের চোখে।

ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ

অন্য ব্যক্তির ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ করা থেকে দৃঢ়ভাবে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, আপনার নিজেরও ব্যক্তিগত একটি জীবন আছে যেখানে অন্যলোকের হস্তক্ষেপ আপনার পছন্দ হবেনা। যদি তাই হয় তবে অন্যের ব্যাপারে কেন নাক গলাতে যাবেন?

আত্মবিশ্বাস

মনে রাখবেন যে কোন কাজের সফলতার জন্য আত্মবিশ্বাস অনেক বড় একটা ব্যাপার। অনেক ঐষুধ যেখানে কাজ করে না সেখানে শুধুমাত্র আত্মবিশ্বাসই অনেক বড় কাজ করতে সক্ষম। আত্মবিশ্বাসী হোন দেখবেন ফল পেতে শুরু করেছেন।

কারো কোন কথায় নিজের ধারণা বা বিশ্বাস পরিবর্তন করবেন না। কখনোই মনে করবেন না আপনি কিছু জানেন না। তবে অবশ্যই কোন বিষয় সম্পর্কে আপনার ভ্রান্ত ধারণা থাকলে সেটা পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন। আপনার অনুভূতি অন্যের সাথে শেয়ার করুন।

আরো পড়ুন: আপনি ঘুমের মধ্যে বকবক করেন? জেনে নিন; আসল কারণ ও সেরা সমাধান

হাসি খুশি থাকার চেষ্টা করুন

জনপ্রিয় হবার উপায়
হাসি খুশি থাকুন

যে কোন পরিস্থিতিতে, যে কোন সময়, যে কোন পরিবেশে সকলের সাথে খুশি হওয়ার চেষ্টা করুন। যদিও আপনি কিছু হারিয়ে ফেলেন বা আপনার জীবন থেকে কোন মূল্যবান ব্যক্তি চলে যায়। আমাদের আশেপাশের মানুষজন চান আমরা যেন সব সময় তাদের সাথে হাসি-খুশি থাকি এবং বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করি। পরিবারের লোকদের সাথে সময় কাটান এবং তাদেরকে বলুন তাদের সঙ্গ আপনাকে আনন্দ দিচ্ছে।

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও পরিপাটি থাকার চেষ্টা করুন। পোশাক যেমনি হোক, তা জেন পরিপাটি আর পরিছন্ন হয় সেটাই খেয়াল রাখবেন। একটি ড্রেস সবাইকে মানায় না। মনে করুন আপনার বন্ধু খুব সুন্দর একটা ড্রেস পড়েছে যেটাতে তাকে অনেক সুন্দর দেখায়। তার মানে এই না যে এটাই সবচাইতে সেরা ড্রেস।

এটাতে আপনাকেও ভাল নাও দেখাতে পারে। তাই যখনই কাপড় কিনবেন বা ড্রেসআপ করবেন খুব সতর্কতার সাথে যাতে সেই ড্রেসে আপনাকে ভাল মানায়। আবার এটাও লক্ষ্য রাখতে হবে, যে ড্রেসটি আপনি পড়ছেন সেটা আরামদায়ক কিনা? সেটা আরামদায়ক না তাহলে সেটা আপনার পুরো লুকটাকে প্রভাবিত করবে, চেহারা মলিন করে দিবে।

সঠিক পোশাক বেছে নিন

ঋতু বদলের সাথে সাথে ওয়ারড্রবেও নিয়ে আসুন আসুন সেই সময়ের পোশাক। আর লেটেস্ট ট্রেন্ডগুলো থেকে বেছে নিন আপনার পছন্দের পোশাকগুলো। আমি এটা বলতেছিনা, আপনি দামি দামি কাপড় ছোপড় পরবেন, কম দামের মধ্যে ভালো পোশাকও পাওয়া যায়। নিউ-মাকের্টের হকার মাকের্ট তো আছেই! সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চললে আপনাকে স্মাট ও ব্যাক্তিত্ব বৃদ্ধিতে সাহায্যে করে। কথায় আছে, আগে দর্শনধারী পরে গুণ বিচারী

সঠিক শু বেছে নিন

স্টাইলকে পরিপূর্ণ করতে সঠিক শু বেছে নেওয়া জরুরি। আপনার অকেশন, পাটির্, খেলাধুলা, কলেজ-ভাসির্টি, অফিস বিভিন্ন অকেশনে ভিন্নভাবে নিয়েকে উপস্থাপন করে তালমিলিয়ে চলাটাই হ্যান্ডসাম হওয়ার অন্যতম উপায়। এজন্য বর্তমান ট্রেন্ড অনুযায়ী বেছে নিতে পারেন নুডস, কালো অথবা লাল রঙের পম পম।

আরো পড়ুন: অন্যমনস্ক? মনোযোগ বৃদ্ধির দোয়া ও বিশেষ কৌশল

আনুষঙ্গিক আইটেম যোগ করুন

আনুষঙ্গিক আইটেম হিসেবে যোগ করতে পারেন কানের দুল, ব্রেসলেট, চোকার কিংবা হেয়ার অ্যাক্সেসরিজ। তবে আপনি যতই আনুষঙ্গিক যোগ করেন না কেন, খেয়াল রাখবেন যেন তা অতিরিক্ত না হয়ে যায়। আর আপনি যদি কোন নির্দিষ্ট আইটেমকে বিশেষভাবে হাইলাইট করতে চান, তাহলে যত কম আনুষঙ্গিক ব্যবহার করা যায় তত ভাল।

চোখেই সৌন্দর্য

কথায় বলে আকর্ষণ করার জন্যসুন্দর একজোড়া চোখই যথেষ্ট। স্টাইল করার জন্য দিনের জন্য চোখে ব্যবহার করতে পারেন বর্ধিত আইলাইনার, কাজল এবং মাসকারা। আর সন্ধ্যার জন্য ক্যাট আইসের সাথে স্মোকি আই শ্যাডো।

সুষম খাবার খান

প্রতিদিন পরযাপ্ত ফল, সবজি এবং আমিষ জাতীয় খাবার খান। প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান এবং ভিটামিন আপনার স্কিনকে রাখবে কোমল ও মসৃণ এবং শরীরের ভারসাম্যও বজায় রাখবে।

আরো পড়ুন: সব সময় হাসি খুশি ও মন ভালো রাখার বৈজ্ঞানিক ২০টি মূলমন্ত্র!

মুখমন্ডলের সঠিক যত্ন নিন

অপ্রয়োজনীয় হেভি ডিউটি বিউটি ট্রিটমেন্ট ব্যবহার না করাই ভাল। এর চেয়ে বিভিন্ন রকম ফল ও ভেষজ উপাদান দিয়ে বাসায় তৈরি করে নিতে পারেন আপনার মুখমন্ডোলের জন্য উপযুক্ত বিউটি প্রোডাক্ট।

নির্দিষ্ট কাউকে অনুসরন করবেন না

আপনি কাউকে অনুকরন করবেন না বরং সবাই যেন আপনাকে অনুসরণ করে সেই অনুযায়ী নিজেকে তুলুন। আপনি যেমন আছেন তেমন থাকারই চেষ্টা করুন। জোর করে কোনও কিছু নিজের ওপরে আরোপ করতে করবেন না। আর হ্যা কথায় কথায় রাগ হবেন না। রাগ হলে স্মার্ট হওয়া যায় না। বরং নিজের ভাবমুর্তি অন্যের কাছে নষ্ট হয়। কখনো কাউকে তুই করে বলবেন না।

বড় হলে আপনি আর ছোট হলে তুমি বলতে হবে। সব পদের লোকদের সাথে যথাযথ ব্যবহার করুন। কোন কাজের ভুল হলে বুঝিয়ে বলুন রাগ হবেন না। অন্যের কাজ থেকে যে সম্মানটা আপনি আশা করেন, ঠিক তেমনই অন্যদেরকে সম্মান করুন। বড়দের শ্রদ্ধা করুন আর ছোটদের স্নেহ করুন। অন্য ব্যক্তির ব্যক্তিগত বিষয়ে সরাসরি হস্তক্ষেপ করবেন না। প্রয়োজন হলে অনুমতি নিন।

আরো পড়ুন: প্রথম সেক্স করার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় ১০টি টিপস ✅

আপনার হাসি

একটি হাসি মুখ দিয়েই অভিভুত করতে পারেন চারপাশের সবাইকে।

সবশেষে বলা যায়, নিজের ভাষা সম্পর্কে জানুন। যে ব্যক্তি নিজের ভাষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে জানেন না, তিনি কোনোদিনই একজন ব্যক্তিত্ববান মানুষ হতে পারেন না। আর সর্বদা মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। একটু চেষ্টা করেই দেখুন, খুব কঠিন কিছু কিন্তু নয়। এই ব্যাপার গুলোই আপনাকে করে তুলবে আরও স্মার্ট ও ব্যক্তিত্ববান একজন মানুষ।

Posted by: Jannatul ferdous Riya

প্রিয় পাঠক, আপনিও সম্ভব ডটকমের অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল বিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ ইনবক্স করুন- আমাদের ফেসবুকে প্রতিদিনের স্বাস্থ্য টিপস লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।