যৌনশক্তি বা কামশক্তি বৃদ্ধির ৪০টি স্মাট উপায়

655

আমাদের সমাজে পুরুষদের যৌন স্বাস্থ্য নিয়ে কথা বলাকে অসৌজন্য বা লজ্জার ব্যাপার হিসেবেই দেখা হয়। সকল পুরুষ সমান নয়! কারো যৌনশক্তি বা কামশক্তি বেশি আবার কারো যৌনশক্তি কম। তাই যাদের কামশক্তি কম তাদের জন্য আজকের বিশেষজ্ঞ ডাক্তাদের ও প্রাকৃতিক উপায়ে যৌনশক্তি বা কামশক্তি বৃদ্ধির ৪০টি স্মাট উপায় নিয়ে আলোচনা করা হলো।

পুরুষত্বহীনতা অর্থাৎ পুরুষের শারীরিক অক্ষমতা বা দুর্বলতা আজকাল প্রকট আকার ধারণ করছে। একদম তরুণ থেকে শুরু করে যেকোনো বয়সী পুরুষের মাঝে দেখা যাচ্ছে এমন যৌন সমস্যা।

অনেক পুরুষ অকালেই হারিয়ে ফেলছেন নিজের সক্ষমতা, উঠতি বয়সের যুবকরা রীতিমতো হতাশ হয়ে পড়ছেন। এতে বাড়ছে দাম্পত্যে অশান্তি, সন্তানহীনতার হার।

কিন্তু, কারণ কি পুরুষদের এই ক্রমশ শারীরিকভাবে সক্ষম বা দুর্বল হয়ে যাওয়ার পেছনে? কারণ লুকিয়ে আছে আমাদের বর্তমানের আধুনিক জীবনযাত্রার মাঝেই।

আপনার প্রতিদিনের স্ট্রেসভরা অস্বাস্থ্যকর জীবন, আপনার নিজের কোনো একটা ভুলই হয়তো আপনাকে ক্রমশ ঠেলে দিচ্ছে পুরুষত্বহীনতার দিকে। কেন এমন হচ্ছে সেটা জানার আগে জানতে হবে পুরুষের একান্ত দুর্বলতাগুলো কী বা কেমন?

« এক নজরে দেখুন এই প্রতিবেদনে কি কি রয়েছে »

শারীরিক শক্তি দুর্বলতার কারন সমুহ

প্রয়োজনীয় সময়ে নিজেকে মেলে ধরতে না পারা বা দুর্বলতা অনুভব

সঙ্গীর যোনিদ্বার ছেদনে ব্যর্থতা

সহবাসে স্থায়ীত্বের অভাব

ডায়াবেটিস, লিঙ্গে জন্মগত কোনো ত্রুটি, সেক্স হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, গনোরিয়া বা সিফিলিসের মতো যৌনরোগ ইত্যাদি।

প্রাকৃতিক শারীরিক সমস্যা ছাড়াও প্রচণ্ড কাজের চাপ, মানসিক অশান্তি, দূষিত পরিবেশ, ভেজাল খাওয়া দাওয়া, কম বিশ্রাম ও ব্যায়াম ছাড়া অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন ইত্যাদি অনেক কারণই আছে ক্রমশ যৌন সক্ষমতা হারিয়ে ফেলার পেছনে।

আবার অবাধ যৌন সম্পর্ক, অতিরিক্ত মাস্টারবেশন, যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য হাবিজাবি ওষুধ সেবন ইত্যাদি কারণকেও অনেকের যৌন জীবনে বিপর্যয় নেমে আসে। ফলে এগুরো অবহেলা করলে চলবে না।

এছাড়া বয়সজনিত অসুস্থতা, সঙ্গিনীর সঙ্গে বয়সের পার্থক্য বা সঙ্গিনীকে পছন্দ না করা, এইডসভীতি, পর্যাপ্ত যৌন জ্ঞানের অভাব, ত্রুটিপূর্ণ যৌনাসনও অক্ষমতা বা দুর্বলতার জন্য দায়ী হতে পারে।

লিঙ্গ জনিত এই সমস্যার সমাধান ঘরোয়া ভাবেই করা সম্ভব। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শারীরিক থেকে মানসিক ও জীবন যাত্রার প্রভাব এই সমস্যার জন্য দায়ী হয়।

লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যা কী?

এ রোগ ED (Erectile Dysfunction) / ধ্বজভঙ্গ বা যৌন মিলনে অক্ষমতা (Impotence, Sexual Impotence) এবং পুরুষাঙ্গের উত্থান জনিত ব্যাধি (Male Erectile Disorder) নামেও পরিচিত।

ED অনিয়মিতভাবে দেখা দিলে তা কোনো চিন্তার বিষয় না। তবে এ সমস্যা বারবার দেখা দিলে অবশ্যই বুঝতে হবে এটি কোনো গুরুতর রোগের লক্ষণ এবং পুরুষদের যৌন স্বাস্থ্য এর ফলে হুমকির মুখে পড়তে পারে। এক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যার কারণ কী?

পুরুষের যৌন উত্তেজনার সৃষ্টি একটি জটিল প্রক্রিয়া এবং এই প্রক্রিয়ায় মস্তিষ্ক, হরমোন, রক্তবাহী নালী, স্নায়ু, মাংসপেশী, আবেগ ও অনুভূতি সব একসাথে কাজ করে। এগুলোর মধ্যে একটিতেও অস্বাভাবিকতা দেখা দিলে পুরুষাঙ্গ উত্থানে এবং পুরুষদের যৌন স্বাস্থ্য জনিত সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে।

শারীরিক ও মানসিক অসুস্থার জন্য এই সমস্যা দেখা দিতে পারে এবং দুশ্চিন্তা ও অন্যান্য মানসিক অসুস্থার জন্য এ সমস্যার আরও অবনতি হতে পারে। নিম্নে এ রোগের কারণগুলো আলোচনা করা হলোঃ

শারীরিক কারণ

যেসকল শারীরিক সমস্যার ফলে লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যার কারণে পুরুষদের যৌন স্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়ে তা হলঃহৃদরোগ।

Atherosclerosis বা রক্তনালী বন্ধ হয়ে যাওয়া।
রক্তে কোলেস্টরলের পরিমাণ বেড়ে যাওয়া
ডায়াবেটিস।
অতিরিক্ত মেদ।
একই সাথে কয়েকটি লক্ষণ (উচ্চ রক্তচাপ, ইনসুলিন ও কোলেস্টরলের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া এবং কোমরের কাছে মেদ জমা) দেখা দেওয়া (Metabolic Syndrome)।
পারকিনসন রোগ।
টেসটোস্টেরনের পরিমাণ কমে যাওয়া ।
পেরোনিজ ডিজিজ (Peyronie’s disease)
নির্দিষ্ট কিছু ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ।
তামাকের ব্যাবহার ।
মদ্যপান ও অন্যান্য নেশাজাতীয় দ্রব্যের ব্যবহার ।
প্রোস্টেট (Prostate) বড় হয়ে গেলে/ ফুলে গেলে বা প্রোস্টেট ক্যান্সারের জন্য চিকিৎসা করানোর ফলে ।
কোনো অপারেশন বা আঘাতের জন্য শ্রোনীচক্র (Pelvic) ও স্পাইনাল কর্ডের কোনো ক্ষতি হলে ।

মানসিক কারণ

যৌন উত্তেজনা সৃষ্টি করতে আমাদের মস্তিষ্ক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই বিভিন্ন মানসিক সমস্যার জন্যও এ রোগ দেখা দিতে পারে। যেমনঃ

১. হতাশা, দুশ্চিন্তাসহ অন্যান্য মানসিক অশান্তি থাকলে হৃদস্পন্দন, রক্তচাপ এবং অবসাদ বেড়ে যায়, যা আপানার যৌন জীবনে প্রভাব ফেলে।

২. মানসিক চাপ।

৩. সুম্পর্কের অভাব বা সম্পর্কে টানাপোড়েন।

৪. আপনি আপনার সঙ্গীর যৌন চাহিদা পূরণ করতে পারছেন না এই ভয় আপনার শারীরিক সমসস্যার জন্য দায়ী হতে পারে।

৫. আপনার মানসিক অবস্থা আপনার যৌন জীবনের উপর গুরুতর প্রভাব ফেলে। মানসিকভাবে হাসিখুশি না থাকলে যৌন উত্তেজনাও কমতে শুরু করে।

৬. অনেক সময় যৌনতার ব্যাপারে মানুষ উদাসীন হয়ে পড়ে। সে সময় এ ধরনের সমস্যা দেখা দেয়।

৭. লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যা দেখা দিলে ব্যক্তি আরও বেশি আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়েন। অথবা প্রথম বার যৌন সম্পর্ক স্থাপন করার সময় ব্যক্তি ভয় বা দুশ্চিন্তার কারণে লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যার সম্মুখীন হন।

কোন কোন বিষয়গুলো এই রোগের ঝুঁকি বাড়ায়?

বয়স বাড়ার সাথে সাথে পুরুষাঙ্গের উত্থান ক্ষমতা হ্রাস পায় এবং এটি দৃঢ় হতে বেশি সময় নেয় ও তা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয় না। তবে শুধুমাত্র বয়সের কারণেই এ সমস্যাটি হয় না। বয়সের সাথে সাথে অন্যান্য শারীরিক সমস্যা ও ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ফলেও এ সমস্যা দেখা দিতে পারে।

এ রোগের ক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলো হল

১. লিঙ্গের উত্থান ক্ষমতা যেসকল স্নায়ু বা নার্ভের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় সেগুলো কোনো আঘাতের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হলে এ রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

২. নির্দিষ্ট কিছু ঔষধ যেমনঃ এ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট (Antidepressants), এ্যান্টিহিসটামিন (Antihistamines) এবং উচ্চ রক্তচাপ, ব্যাথা ও Prostate ক্যান্সারের জন্য যেসকল ঔষধ দেওয়া হয় তা ব্যবহারের কারণে এ রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

৩. মদ্যপান ও মাদক সেবনের জন্য এ রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

৪. দীর্ঘদিন সাইকেল চালানোর জন্য স্নায়ু সংকুচিত হয়ে যায় এবং লিঙ্গে রক্তপ্রবাহ কমে যায়। যার ফলে কিছু সময়ের জন্য লিঙ্গের উত্থান ক্ষমতা কমে যেতে পারে।

ট্যাবলেট টাইমেক্স এর কাজ কি

ট্যাবলেট টাইমেক্স মূলত যারা ভয় ও উৎকন্ঠায় ভোগে তাদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়। মানসিক চাপ উদ্বেগ উত্কন্ঠা, আতঙ্ক, বুক ধড়ফড় করা, টেনশন, মৃগীরোগ, দুশ্চিন্তা, হৃদকম্প, যে কোনো বিষয়ে ভয় পাওয়া। পেনিক ডিসঅর্ডার, সোস্যাল অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার, অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার, ডিপ্রেশন, মাথা ব্যথা, ঘুমের সমস্যা এবং দ্রুত বীর্যপাত সমস্যায় ব্যবহৃত হয়। তবে আপনার সমস্যা অনুযায়ী ডাক্তারের পরামর্শই সর্বোত্তম হবে।

আরো পড়ুন: হাদিস অনুযায়ী সহবাসের নিয়ম; স্বামী স্ত্রীর মিলনের গুরুত্বপুর্ণ হাদিস

ED এর জন্য যে ঔষধ দেওয়া হয় তাতে কি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে?

ভায়াগ্রা (Viagra) এবং এই ধরণের ঔষধের সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হল মাথাব্যথা যা ১৬ শতাংশ ব্যবহারকারীর মধ্যে দেখা যায়। ১০ শতাংশ ব্যবহারকারীর রক্তচাপ কমে যায়, মাথা ঝিমঝিম করে ও মুখে লাল ভাব দেখা দেয়। ১০ শতাংশ ব্যবহারকারীর খাবার হজমে অসুবিধা দেখা দেয়। ১০ শতাংশ ব্যবহারকারীর নাক বন্ধ হয়ে যায়। Viagra ব্যবহারকারীদের মধ্যে কারও কারও দৃষ্টি সমস্যা দেখা দেয়। এসব ঔষধের প্রভাবে পুরুষদের যৌন স্বাস্থ্য ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে।

এ রোগের ক্ষেত্রে সার্জারি করা কতটা প্রয়োজনীয়?

পূর্বে এ রোগের শুধুমাত্র একটিই চিকিৎসা ছিল আর তা হল অপারেশনের সাহায্যে লিঙ্গের মধ্যে প্রোসথেটিক ডিভাইস স্থাপন করা। তবে এখন ঔষধের সাহায্যে এ রোগের চিকিৎসা সম্ভব এবং ঔষধের সাহায্যে চিকিৎসা সম্ভব না হলে শুধুমাত্র তখনই অপারেশন করা হয়। শুধুমাত্র একজন রেজিস্টার্ড ডাক্তারই নির্ধারণ করবে আপনার ঔষধ খাওয়ার বা সার্জারি করার প্রয়োজন আছে কিনা।

যৌনশক্তি স্বাস্থ্য টিপস

  • ব্যায়াম করতে হবে বা ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।
  • ধূমপান ত্যাগ করতে হবে।
  • মদ্যপান এড়িয়ে চলতে হবে।
  • পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেতে হবে।
  • রক্তচাপ ও কোলেস্টরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।
  • দুশ্চিন্তা কমিয়ে আনতে হবে এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমাতে হবে, (রাতে কমপক্ষে ৭ ঘন্টা) ।
  • তরমুজের জুস খেতে পারেন।
  • বেদানা বা ডালিমের জুস উপকারী।
  • হীনমন্যতায় ভুগবেন না।
  • কাছের মানুষের সাথে বিষয়টি নিয়ে কথা বলুন।

পুরুষদের যৌন স্বাস্থ্য ঠিক থাকার পিছনে মানসিক অবস্থার প্রভাব উল্লেখযোগ্য। লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যা খুব-ই সাধারণ। শতকরা ৯০% মানুষ এই বিষয়টি নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভোগেন, বিষয়টি চেপে যান এবং লজ্জায় সঙ্গীর সাথে আলোচনা করেন না।

জ্বর হলে আপনি যেমন ডাক্তারের কাছে যান, সঙ্গীর সেবা শুশ্রূষা নেন, তেমনি এই ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রেও আপনাকে কথা বলতে হবে; আপনার সঙ্গীর সাথেই কথা বলতে হবে। উপরে উল্লিখিত ঘরোয়া নিয়ম কানুন মেনে এবং মানসিক অবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে সহজেই লিঙ্গের উত্থান জনিত সমস্যা সমাধান করা সম্ভব।

আরো পড়ুন: এমন ২০টি খাবার, যা আপনার যৌনশক্তিকে দ্বিগুণ করবে!

যৌনশক্তি বাড়ানোর প্রাকৃতিক খাবার

যৌনশক্তি বাড়ানোর উপায়

যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য কোন প্রকার ওষুধের প্রয়োজন নেই, তার জন্য দৈনন্দিন পুষ্টিকর খাবারদাবারই যথেষ্ট। আর তাই প্রতিদিন ডায়েট চার্টে রাখুন কিছু ফল-সবজি যা আপনার লিঙ্গের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত রাখবে।

জানেন কি, এমনই কয়েকটি খাদ্যের মধ্যে রয়েছে সেই আশ্চর্যজনক উপাদান! যা আপনার হারিয়ে যাওয়া সেক্স ড্রাইভ পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করতে পারে। আসুন চিনে নিই সহজলভ্য সেসব খাবার.

ডিম

ডিম আমাদের সেক্স ক্ষমতা বাড়াতে অত্যান্ত সাহায্য করে। আমাদের নিয়মিত ডিম ফুল সিদ্ধ করে প্রতিদিন খেতে হবে। আর প্রতিদিন না পারলে সপ্তাহে পাঁচ দিন খেতে হবে। তাতে আপনার যৌন ক্ষমতা অনেকটাই বাড়তে সাহায্য হবে।

আপেল

‘প্রতিদিন একটি আপেল’ আপনার লিঙ্গ সুস্থ ও নিরাপদ রাখবে। এন্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ আপেল জননাঙ্গে রক্ত সরবরাহ বাড়ায় এবং যৌন চাহিদা তীব্র করে। আপেলে ভিটামিন ‘এ’ ও ভিটামিন ‘বি১’ আছে যা লিঙ্গের আশেপাশে টিউমার হওয়া প্রতিরোধ করে।

দুধ

আমাদের শরীরের দূর্বলতা কমাতে এই দুধ অত্যন্ত কার্যকারীতা পালন করে। দুধে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন থেকে থাকে। তাছাড়া আমাদের যৌন ক্ষমতা যাদের দূর্বল তাদের জন্য এই দুধ অত্যান্ত কার্যকারীতা পালন করবে। এই দুধ বা দুধের সর বা দুধের মাখন আমাদের শরীরে যে হরমোন থেকে থাকে তার পরিমাণ বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।

বিট

প্রাকৃতিক উপায়ে জননাঙ্গের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে প্রতিদিন সালাদের সঙ্গে বিট খান। বিটে প্রচুর পরিমানে নাইট্রেট থাকে যা পুরুষাঙ্গের রক্তনালীগুলো প্রসারিত করে। এতে রক্তের সঙ্গে বিশুদ্ধ অক্সিজেন জননাঙ্গে প্রবেশ করায় যৌনশক্তি বৃদ্ধি পায়।

মধু

মধু আমাদের সেক্স ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে অনেক সহাযতা করে। মৌমাছিরা বিভিন্ন প্রকার ফুল ফল ঔষধী গাছের ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করে একত্রে এই মধুর সৃষ্টি হয়ে থাকে। তাই এতে কোনো প্রকার ক্ষতি থেকে থাকে না। আমাদের যাদের যৌন ক্ষমতাই সমস্যা আছে তারা অবস্যই প্রতি সপ্তাহে ৩/৪ দিন সকালে খালিপেটে এক গ্লাস গরম পানির সাথে এক চামচ মধু মিশিয়ে খেতে হবে।

রসুন

রসুন সেক্স ক্ষমতা বাড়াতে অনেক সহাযতা করে থাকে। যাদের যৌন সমস্যা রয়েছে তাদের এখন থেকেই নিয়মিত রসুন খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ। রসুনে এক ধরনের এলিসিন রয়েছে যেটা দ্বারা আমাদের লিঙ্গে রক্তের চলাচল অনেক গুনে বাড়িয়ে তোলে, যার ফলে আমাদের যৌন ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

কফি

আমাদের অনেকেরই স্ত্রীর সাথে সহবাসের ইচ্ছা করে না। তাদের জন্য কফি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ। কফিতে এক প্রকার ক্যাফেইন থাকে,  যেটার জন্য ব্যাক্তিকে সহবাসের ইচ্ছা তৈরি করে।

জয়ফল

গবেষণায় দেখা গেছে, জয়ফল থেকে এক ধরনের কামোদ্দীপক যৌগ নিঃসৃত হয়। সাধারণভাবে এই যৌগটি স্নায়ুর কোষ উদ্দীপিত করে এবং রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে আপনার যৌন ইচ্ছা বৃদ্ধি পায়। আপনি কফির সাথে মিশিয়ে জয়ফল খেতে পারেন, তাহলে দুইটির কাজ একত্রে পাওয়া সম্ভব।

চকলেট

ভালোবাসা ও যৌনতার সঙ্গে সবসময়ই চকলেটের একটা সম্পর্ক রয়েছে। এতে রয়েছে ফেনিলেথিলামিন (পিইএ) ও সেরোটোনিন। এ দুটি পদার্থ আমাদের মস্তিষ্কেও রয়েছে। এগুলো যৌন উত্তেজনা ও দেহে শক্তির মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। পিইএ’র সঙ্গে অ্যানান্ডামাইড মিলে অরগাজমে পৌঁছাতে সহায়তা করে।

কলা

কলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম মানবদেহের যৌনরস উৎপাদন বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও। যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতেও সহায়ক। আর সর্বোপরি কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ শর্করা যা আপনার দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। ফলে দীর্ঘসময় ধরে যৌন মিলনে লিপ্ত হলেও আপনার ক্লান্তি আসবে না।

ভিটামিন সি জাতীয় ফল

যৌন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে প্রতিদিন খাবার তালিকায় রঙিন ফলমূল রাখুন। আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি ফল যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। গবেষণা দেখা গেছে, একজন পুরুষের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় অন্তত ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকলে তার স্পার্মের কোয়ালিটি উন্নত হয়। এসব ফলে মধ্যে তরমুজের প্রভাব বেশি। অনেকে যৌন উদ্দীপক ওষুধ ভায়াগ্রার সাথে তরমুজের তুলনা করেছেন।

গরুর মাংস

গরুর মাংসে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। তাই আপনি যৌন জীবনকে আরো আনন্দময় করতে কম ফ্যাটযুক্ত গরুর মাংস খান। যেমন গরুর কাঁধের মাংসে, রানের মাংসে কম ফ্যাট থাকে এবং জিঙ্ক বেশি থাকে। এইসব জায়গার মাংসে প্রতি ১০০ গ্রামে ১০ মিলিগ্রাম জিঙ্ক থাকে।

বাদাম

স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য বাদাম খাওয়ার কোনো বিকল্প নেই। এতে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি বিদ্যমান যা বিষণ্ণতার মতো পরিস্থিতি থেকে খুব সহজেই পরিত্রাণ দেয়। এছাড়া বাদামে জিঙ্ক থাকায় শুক্রাণুর পরিমাণ তুলনামূলক হারে বৃদ্ধি পায়। প্রজনন ক্ষমতা ও যৌনাঙ্গের স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য ডাক্তাররা বাদাম খেতে পরামর্শ দেন।

রঙিন ফল

সম্ভব ডটকম

শরীর সুস্থ্য রাখতে বা যৌন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে রঙিন ফলমূল এর বিকল্প নাই। তার মধ্যে আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি ফল যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী।

এক গবেষণা অনুযায়ী, একজন পুরুষের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় অন্তত ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকলে তার স্পার্মের কোয়ালিটি উন্নত হয়। আবার A&M ইউনিভার্সিটির মতে, তরমুজ শরীরে যৌন উদ্দীপনা বৃদ্ধি করে। তারা যৌন উদ্দীপক ওষুধ ভায়াগ্রার সাথে তরমুজের তুলনা করেছেন।

ব্রকোলি

অনেকেই সবজি হিসেবে ব্রকোলি অপছন্দ করেন। ব্রকোলিতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন-সি থাকায় জননাঙ্গে রক্ত প্রবাহ স্বাভাবিক থাকে। প্রতিদিন খাবারে ঠিকঠাক ভিটামিন সি-এর উপস্থিতি শরীরে বয়ে চলা রক্তস্রোতের অবিচলিত ধারা বজায় রাখে। বিশেষ মুহূর্তে বিশেষ অঙ্গে রক্তস্রোতের অবাধ প্রবাহ বহাল রাখতে ব্রকোলির শরণাপন্ন হোন।

গাঁজর

গাঁজরে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি বিদ্যমান। এতে ভিটামিন ‘এ’ আছে যা পুরুষদের হরমোন তৈরিতে সাহায্য করে। প্রতিদিন সালাদে গাঁজর খেলে সু-স্বাস্থ্যের পাশাপাশি সুস্থ্য সবল থাকবে যৌনাঙ্গও।

মুরগীর মাংস

ডায়েটে চর্বি ছাড়া মুরগীর মাংস রাখা মানেই সুস্বাস্থ্যের দিকে এক ধাপ এগিয়ে যাওয়া। এতে শরীরে পেশির পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। অতিরিক্ত চর্বি কমে যায়, শক্তি বৃদ্ধি পায়। মুরগীর মাংসে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন উপস্থিত। এতে শরীরে অন্যান্য অঙ্গের ন্যায় পুরুষদের যৌনাঙ্গে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে।

চেরি

চেরি ফল পেস্ট্রি কেকের মধ্যেই ভালো লাগে বেশি। তবে ডায়েটে চেরি খাওয়ার উপকারিতা এড়িয়ে যাওয়ার মতো নয়। চেরিতে প্রচুর অ্যান্থোসায়ানিন থাকায় ধমনীতে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে। প্রতিদিন চেরি খাওয়াতে পুরুষদের যৌনাঙ্গের স্বাস্থ্য উন্নত হয়।

আরো পড়ুন: যৌন মিলন দীর্ঘস্থায়ী করার বিশেষজ্ঞদের কিছু কার্যকারী টিপস

কাম শক্তি বৃদ্ধিতে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে

০১) নিয়মিত পুরুষাঙ্গ পরিষ্কার ও শুকনো রাখুন। শরীরের এই অংশে পানি অথবা ঘাম জমতে দিবেন না। টিস্যু পেপার অথবা তোয়ালে দিয়ে ঘামার সঙ্গে সঙ্গে মুছে দিন। এবং প্রতিদিন অন্তত দু’বার সাবান অথবা বডিওয়াশ দিয়ে ধোয়া অনেক জরুরী। এতে দেহের এই অংশ ময়লা জমে দুর্গন্ধের সৃষ্টি করবেনা।

০২) যৌন কার্য সম্পাদনের পর পরই পুরুষাঙ্গ পরিষ্কার করে নিন। এতে যৌনরোগ সংক্রমণের সম্ভাবনা বেশ কমে। হাতের কাছে পানি না থাকলে টিস্যু দিয়ে আলতো করে মুছে নিন।

০৩) প্রতিদিন আপনার অন্তর্বাস পরিবর্তন করুণ। ছেলেদের মধ্যে একই অন্তর্বাস দিনের পর দিন পরে থাকার একটি প্রবণতা দেখা যায়। এতে সঙ্গিনীর শরীরের রোগ সংক্রমণের আশঙ্কা থাকার পাশাপাশি আপনার শরীরেই বিভিন্ন ধরনের ত্বকের রোগ হতে পারে। নিয়মিত অন্তর্বাস না পরিবর্তন করলে পুরুষাঙ্গে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতে পারে।

০৪) লিঙ্গে কোনও লাম্প, ফোস্কা, ফুসকুড়ি, দাগ বা লাল-ভাব হওয়া ইনফেকশন বা বড়সড় কোনও রোগের লক্ষণ হতে পারে। গোসল করার সময় প্রতিদিন ভাল করে খেয়াল করুণ আপনার লিঙ্গে এমন কিছু সমস্যা রয়েছে কিনা। ইনফেকশন থাকাবস্থায় কনডম না ব্যবহার করে কখনোই সহবাস করবেন না। আর ইনফেকশন চোখে পড়লে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

০৫) আপনার পুরুষাঙ্গে বা তাঁর আশে-পাশে কোন রকম ইনফেকশন থাকলে আপনার সঙ্গিনীকে মুখ মেহন (ওরাল সেক্স) করতে নিষেধ করুণ। ঠিক তেমনিভাবে আপনার নারীর সঙ্গিনীর যৌনাঙ্গএ কোনও ইনফেকশন থাকলে আপনি নিজেও মুখ মেহন করবেন না। এতে ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

আরো পড়ুন: এক প্যাকেট কনডমের দাম ৬৪,০০০ টাকা!

০৬) উদ্দাম যৌনতায় লিঙ্গের ত্বক এবং যোনি বা পায়ুনালির ভিতরের ত্বক কেটে যেতে পারে এবং রক্তও বেরোতে পারে। এই সব ক্ষেত্রেই এসটিডি বা সহবাসের মাধ্যমে সংক্রামিত রোগ এক শরীর থেকে অন্য শরীরে ছড়ায়। এই সম্ভাবনা থেকে বাঁচতে কনডম ব্যবহার করুণ। বিশেষ করে যারা পায়ুসঙ্গম (অ্যানাল) করেন তাঁদের ক্ষেত্রে কনডম পরাটা খুবই জরুরী।

০৭) ভালো ব্রান্ডের, ভাল ফেব্রিক্সের অন্তর্বাস পড়ুন। খুব টাইট অন্তর্বাস পরলে ঘাম এবং ঘর্ষণের ফলে পুরুষাঙ্গে চুলকানি বা অন্যান্য ইনফেকশন হতে পারে।

০৮) যৌনাঙ্গ সুগন্ধি করে রাখুন। এতে ঘামের কটু গন্ধ থাকবে না ফলে নিজেরও ভালো লাগবে সাথে আপনার সঙ্গিনীরও। তবে কখনো পুরুষাঙ্গে ডিওডরেন্ট স্প্রে করবেন না। ভাল কোলন লাগাতে পারেন কিংবা হার্বাল পারফিউম লাগাতে পারেন।

০৯) আপনার যৌনাঙ্গের কেশমুক্ত রাখুন। আপনার যৌনাঙ্গের কেশ মুক্ত রাখতে রেজার ব্যবহার করুণ। কখনোই হেয়ার রিমুভার ক্রীম ব্যবহার করবেন না। হেয়ার রিমুভার ক্রীম ব্যবহারের ফলে যৌনাঙ্গের আশে-পাশের ত্বকে কাল ছোপ পড়ে যায়।

যৌনশক্তি বা কাম শক্তি বৃদ্ধিতে যা করবেন

jono sastho

প্রথমেই যা করবেন, সেটা হলো একজন ভালো ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন। লজ্জা না করে নিজের সমস্ত সমস্যা খুলে বলুন ও ডাক্তারের পরামর্শ মতো প্রয়োজনীয় সকল চিকিৎসা নিন। এতে লজ্জার কিছুই নেই। একটাই জীবন। লজ্জার চাইতে নিজেকে সুস্থ ও সক্ষম রাখা জরুরি।

আপনার ডায়াবেটিস থাকলে প্রয়োজনীয় সকল নিয়ম-কানুন মেনে চলুন।নিজের জীবনধারাকে একটি স্বাস্থ্যকর জীবনে বদলে ফেলুন।

নিয়মিত স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবার খান, ব্যায়াম করুন, রাতে পর্যাপ্ত ঘুমান, চেষ্টা করুন কাজের চাপের মাঝেও বিশ্রাম নিতে।

আপনার শরীর যখন সুস্থ ও সক্ষম থাকবে, যৌনজীবনও থাকবে সুন্দর। সঙ্গীর সঙ্গে রোমান্টিক জীবনের উন্নতি করুন।

যদি সঙ্গীকে অপছন্দ করার কারণে সমস্যা হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে চেষ্টা করুন সঙ্গীকে ভালবাসতে। তার সঙ্গে দূরে কোথাও নিরিবিলি বেড়াতে যান, তাকে গভীরভাবে জানার চেষ্টা করুন।

মানসিকভাবে প্রেমে পড়লে শরীরটাও সাড়া দেবে। একটা জিনিস মনে রাখবেন, বাস্তবে নারীর সঙ্গে সিনেমার নায়িকা বা পর্নস্টারদের মিল খুঁজতে যাবেন না। নিজের দিকে তাকান, নিজের সাধারণত্ব দেখুন। দেখবেন, সঙ্গীকেও আর খারাপ লাগছে না।

আরো পড়ুন: আপনার শারীরিক দুর্বলতার মূল কারণগুলো জানেন কি?

যৌনশক্তি বা কাম শক্তি বৃদ্ধির জন্য যা করা উচিত নয়

  • অতিরিক্ত মাস্টারবেট করার অভ্যাস থাকলে পরিত্যাগ করুন।
  • যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য হাঁতুড়ে ডাক্তারদের শরণাপন্ন হবেন না।
  • কোনো টোটকা ব্যবহার করবেন না।
  • কোনো তেল বা ওষুধ কিছুই ব্যবহার করবেন না হাঁতুড়েদের কথায় প্রভাবিত হয়ে।

বাজারে সাময়িকভাবে যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর কিছু ওষুধ পাওয়া যায়, যেগুলো সেবনে ২৪ ঘণ্টার জন্য যৌন ক্ষমতা বাড়ে। এ ধরনের ওষুধ মোটেও ব্যবহার করবেন না। এতে সাময়িক ক্ষমতা বাড়লেও, ক্রমশ আসলে ক্ষমতা কমতেই থাকবে।

সুত্র: bbc, wordhealth, healthcare, wikihow, wikipedia, doctorexpo, doctorusa, bd-protidin, health.com etc

প্রতিদিনের আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গেই থাকুন: প্রতিদিনের স্বাস্থ্য টিপস

bangladesh protidin Bangla Health Tips bangla tips bd bdhealth bd protidin bengali love sms bengali sms health health news health tips health tips bangla love message bangla sax saxul health sex tips sexy health sleep talking somvob somvob.com valobashar sms ইরেকশন সমস্যা সমাধান উত্থান জনিত সমস্যা ধ্বজভঙ্গ রোগের চিকিৎসা পুরুষত্বহীনতা দূর করার উপায় পুরুষের শারীরিক সমস্যা পেনিসের চামড়া প্রতিদিন সহবাসের উপকারিতা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বাংলা টিপস বাংলা স্বাস্থ্য টিপস বিস্ময়কর মিলনের নিয়ম যেীন সমস্যা লিজ্ঞ সমস্যা শারীরিক মিলন পদ্ধতি সম্ভব সম্ভব ডটকম সহবাস করার নিয়ম সানি লিওন স্বামী স্ত্রীর সহবাসের নিয়ম স্বাস্থ্য স্বাস্থ্য টিপস স্বাস্থ্য টিপস বাংলা স্বাস্থ্য সংবাদ