এন্টার্কটিকা সম্পর্কে ১৫ টি চাঞ্চল্যকর তথ্য

406
এন্টার্কটিকা সম্পর্কে ১৫ টি চাঞ্চল্যকর তথ্য

দুর্গম মহাদেশ এন্টার্কটিকা। পৃথিবীর দক্ষিণ মেরুতে অবস্থিত। আয়তন প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ বর্গকিলোমিটার। বিশাল এ আয়তনের প্রায় ৯৮ শতাংশ অঞ্চল গড়ে ১.৯ কিলোমিটার পুরু বরফে ঢাকা। এন্টার্কটিকাকে পৃথিবীর সবচেয়ে শীতলতম স্থান হিসেবে চিহ্নিত করা হয় ১৯৮৩ সালের ২১ জুলাই। তখন তাপমাত্রা ছিল মাইনাস ৮৯.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

পৃথিবীর মোট বরফের প্রায় ৯০ শতাংশই এ মহাদেশে সঞ্চিত আছে। এখানকার সর্বোচ্চ চূড়া ‘মাউন্ট ভিনশন’, যার উচ্চতা প্রায় ১৬,০৫০ ফুট। আগ্নেয়গিরিও রয়েছে। চরম আবহাওয়া সত্ত্বেও এন্টার্কটিকায় জীবের অস্তিত্ব রয়েছে। এখানে প্রায় ১,১৫০ প্রজাতির ছত্রাক, ৭০০ প্রজাতির শৈবাল, ১০০ প্রজাতির মস, ২৫ প্রজাতির লিভারওর্টসহ মাত্র ৩ প্রজাতির সপুষ্পক উদ্ভিদ দেখা যায়। বরফের প্রায় ২,৬০০ ফুট নিচে ব্যাকটেরিয়ার সন্ধান পাওয়া গেছে। কয়েক প্রজাতির পেঙ্গুইন দেখা যায় এন্টার্কটিকায়।

এছাড়া পেট্রেল, এলবাট্রস পাখিও আছে। এন্টার্কটিকার উপকূলে আরও দেখা যায় নীল তিমি, কিলার তিমি, কলোসাল স্কুইড, সিলসহ বিভিন্ন প্রজাতির সামুদ্রিক প্রাণী। রয়েছে এখানকার স্থায়ী বাসিন্দা এস্কিমোরাও। বরফের কোলে এসব প্রাণীর বিচরণ এন্টার্কটিকাকে করেছে বিস্ময়।

এন্টার্কটিকার ভূচিত্র আনকোরা চোখে বিচ্ছিন্ন মনে হতে পারে, কিন্তু সত্যিকার অর্থে এই জায়গা পৃথিবীর আকর্ষণীয় স্থান গুলোর মধ্যে অন্যতম। আর এই আকর্ষণীয় স্থান সম্পর্কে কিছু আকর্ষণীয় তথ্য নিয়ে আজকের আয়োজন।

১. এন্টার্কটিকার শুষ্ক অঞ্চলগুলো পৃথিবীর শুষ্কতম স্থান। এই উপত্যকাগুলোতে বাষ্প ও আর্দ্রতার পরিমাণ এতটাই কম যে, তুষার বা বরফও এই স্থানগুলোকে ধুলোবালির রাজত্ব থেকে মুক্তি দিতে অক্ষম।

২. এন্টার্কটিকা, গড়পড়তায় পৃথিবীর সর্বোচ্চ ঝড়ো বায়ুপূর্ণ স্থান। এন্টার্কটিকার দক্ষিণে অনুসন্ধানকারী বিজ্ঞানীদলের রিপোর্ট অনুযায়ী এন্টার্কটিকার বিভিন্ন স্থানের বায়ু প্রতি ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২০০ মাইল পর্যন্ত প্রবাহিত হয়।

৩. দ্য এন্টার্কটিক আইস শীট বা এন্টার্কটিকের বরফের পাত পৃথিবীর সবথেকে বড় একক বরফের পাত এবং এই পাত ৪ মাইল পর্যন্ত পুরু হয়। এই মহাদেশ পুরো গ্রহের প্রায় ৯০ শতাংশ পরিষ্কার পানির বরফ ধারণ করে এবং পুরো পৃথিবীর হিসেবে তা প্রায় ৭০ শতাংশ।

আরো পড়ুন: শিশুকে মায়ের দুধ পানের বিশেষ কিছু কৌশল ও পরামর্শ

৪. বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে বের করেছেন যে, যদি এন্টার্কটিক আইস শীট গলে যায়, তাহলে পৃথিবীর সমুদ্রপৃষ্ঠ প্রায় ১৬ ফিট পর্যন্ত উন্নীত হবে।

৫. দ্য রস আইস শেল্ফ- একটি ভাসমান বরফের চাই যা মহাদেশের মূল ভূখণ্ডের প্রায় ১৯৭,০০০ বর্গমাইল পর্যন্ত বিস্তৃত- এবং এই পর্যন্ত আবিষ্কৃত সবচাইতে বড় বরফের চাই এই রস আইস শেল্ফ।

এন্টার্কটিকা সম্পর্কে ১৫ টি আকর্ষণীয় তথ্য
Source: G Adventures

৬. এন্টার্কটিকা তার সাদা বরফে আবৃত করে রেখেছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ পর্বতমালা- গ্যাম্বার্টসেভ, প্রায় ৭৫০ মাইল জুড়ে যার বিস্তৃতি। এই পর্বতমালার সর্বোচ্চ শৃঙ্গের উচ্চতা প্রায় ৯,০০০ ফিট, যা বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ হিমালয়ের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের সমান।

৭. এন্টার্কটিকার আরেকটি ভৌগলিক বৈশিষ্ট, যা বরফের পুরু স্তরের নিচে ঢাকা পরে আছে তা হল ভস্টক লেক। ২.৫ মাইল পুরু জমে যাওয়া পানির নিচে অবস্থান করছে স্বচ্ছ পানির এই হ্রদটি। লেক অন্টারিও এর প্রায় সমান আকৃতির হ্রদ এই ভস্টক লেক এবং বরফের নিচে আবিষ্কৃত ২০০ টিরও বেশি জলীয় অংশের মধ্যে অন্যতম।

৮. গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন পৃথিবীর সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক গিরিখাত হলেও বিজ্ঞানীরা এন্টার্কটিকায় এমনই আরেকটি গিরিখাতের সন্ধান পেয়েছে যা আমেরিকার বৃহত্তম এই গিরিখাতের প্রতিদ্বন্দ্বি হয়ে উঠতে পারে। নামহীন এই গিরিখাতের সন্ধান মিলে ২০১০ সালের এক অভিযানের সময়। ৬ মাইলেরও বেশি প্রস্থ এবং ১ মাইলের বেশি গভীরতা সম্পন্ন এই গিরিখাতের বিস্তার ৬২ মাইল পর্যন্ত। বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে বের করেছেন যে, এই গিরিখাতের সত্যিকারের বিস্তার আরও অনেক দূরত্বে হতে পারে, কিন্তু তা আবিষ্কার করতে হলে এন্টার্কটিকায় আরও অনেক অভিযান পরিচালনা করতে হবে।

আরো পড়ুন: স্টবেরি উপকারিতা | কেন স্টেবেরি খাবেন? খেলে কি হয় দেখুন!

৯. পৃথিবীর সর্ব দক্ষিণের সক্রিয় আগ্নেয়গিরি মাউন্ট এরেবাস এন্টার্কটিকায় অবস্থিত- যার অপর পরিচয় একমাত্র “লাভা হ্রদ”, এন্টার্কটিকার এমন হিমশীতল পরিস্থিতির মধ্যেও যে হ্রদ বহুযুগ ধরে গলিত ম্যাগমা ধারন করে আসছে।

১০. এন্টার্কটিকার বিভিন্ন বিষয়ের উপর গবেষণার জন্যে এই মহাদেশে ৮০ টি গবেষণা কেন্দ্র অবস্থিত যা পরিচালনা করে ৩০ টি ভিন্ন ভিন্ন দেশের গবেষকবৃন্দ। গ্রীষ্মকালে এই গবেষণাকেন্দ্রে অবস্থান করে প্রায় ৪০০০ জন লোক এবং দীর্ঘ ও রূঢ় শীতকালে লোকসংখ্যা নামে ১০০০ জনে।

এন্টার্কটিকা
Source: Lonely Planet

১১. ১৯৭৯ সালে জন্মগ্রহণ করা এমিলি মারকো পালমা হল এন্টার্কটিকায় জন্ম নেয়া প্রথম মানব সন্তান। সেই থেকে আজ পর্যন্ত এন্টার্কটিকায় মাত্র ১০ জন মানব শিশু জন্মগ্রহন করেছে।

আরো পড়ুন:হস্তমৈথুন বাদ দিলে ঘন ঘন স্বপ্নদোষ হয়?

১২. পৃথিবী যেহেতু একটু কাত হয়ে আছে, সে কারণে মহাবিষুব থেকে জলবিষুব পর্যন্ত এন্টার্কটিকায় সূর্যের দেখা পাওয়া যায় না, অর্থাৎ, পুরো শীতকাল জুড়ে এই মহাদেশ অন্ধকারে আচ্ছন্ন থাকে।

১৩. বিপরীতক্রমে, গ্রীষ্মের সময় এন্টার্কটিকায় সূর্য অস্ত যায় না, অর্থাৎ এই সময়ে এন্টার্কটিকা বিষুবরেখাস্থ অঞ্চল সমূহ থেকে বেশি সূর্যের আলো পেয়ে থাকে।

১৪. ২০০০ সালের মার্চ মাসে রস আইস শেল্ফ থেকে ১৭০ মাইল দীর্ঘ এবং ২৫ মাইল প্রস্থের বরফের খণ্ড ভেঙে পরে। খণ্ডটি ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য কানেক্টিকাটের প্রায় সমান আয়তনের।

১৫. এন্টার্কটিকার ডীপ লেক এতটাই লবণাক্ত যে, তাপমাত্রা মাইনাস ৪ ডিগ্রী ফারেনহাইট এর নিচে থাকা সত্ত্বেও সেই পানি বরফে পরিণত হয় না।

আরো পড়ুন: স্ত্রী ব্রা খুললেই স্বামী হওয়া যায় না!


[ প্রিয় পাঠক, আপনিও সম্ভব ডটকমের অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ ইনবক্স করুন- আমাদের ফেসবুকে প্রতিদিনের স্বাস্থ্য টিপস লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।